রক্তশূন্যতা কি, কেন হয়, লক্ষণ ও করণীয়

রক্তের হিমোগ্লোবিনের মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে নিচে নেমে গেলে তাকে বলা হয় এনিমিয়া বা রক্তশূন্যতা। হিমোগ্লোবিন হলো রক্তের একটি বিশেষ রঞ্জক পদার্থ। এর প্রধান কাজ শরীরের বিভিন্ন অংশে অক্সিজেন সরবরাহ করা। হিমোগ্লোবিন রক্তের লোহিত কণিকায় থাকে। এতে লোহিত রক্ত কণিকা কমে গিয়েও রক্তশূন্যতা হতে পারে। কেন হয় রক্তশূন্যতা:রক্তশূন্যতা আসলে রোগ নয়, রোগের উপসর্গ। নানা কারণে রক্তশূন্যতা হতে পারে। রক্তের হিমোগ্লোবিন তৈরির অন্যতম প্রধান কাঁচামাল হলো আয়রন। কোনো কারণে শরীরে আয়রনের উপস্থিতি কমে গেলে রক্তশূন্যতা বা এনিমিয়া হতে পারে। একে বলে আয়রনের ঘাটতিজনিত রক্তশূন্যতা। ডাক্তারি ভাষায় ‘আয়রন ডেফিসিয়েন্সি এনিমিয়া’। এ ছাড়া ভিটামিন বি ও ফলিক এসিডের অভাব, দীর্ঘমেয়াদি বিশেষ কিছু রোগ (যেমন কিডনি বিকল), বিশেষ কিছু ইনফেকশন (যেমন যক্ষা), রক্তের ক্যানসার, থ্যালাসেমিয়া, থাইরয়েড হরমোনের সমস্যা, রক্ত উৎপাদনকারীর মজ্জার সমস্যা, রক্তের লোহিত কণিকা নিজে নিজে ভেঙে যাওয়া, রক্তক্ষরণ ইত্যাদি কারণে রক্তশূন্যতা হয়ে থাকে।

নানা রকম রক্তশূন্যতার ভেতর আয়রনের ঘাটতিজনিত রক্তশূন্যতার হারই সবচেয়ে বেশি। বিশেষ করে তৃতীয় বিশ্বের গরিব দেশগুলোতে। নারীদের মধ্যে এর হার পুরুষের তুলনায় বেশি। ২০১২ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে বাংলাদেশের ৭০ ভাগ নারী জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে রক্তশূন্যতায় ভোগে। বাংলাদেশে নারীদের গর্ভাবস্থায় আয়রনের ঘাটতিজনিত রক্তশূন্যতার পরিমাণ সবচেয়ে বেশি। এই রক্তশূন্যতার কারণে বেড়ে যায় মাতৃমৃত্যুর হার। শিশুদের মধ্যেও এর হার যথেষ্ট বেশি। আয়রনের ঘাটতি কেন হয়: আয়রনের ঘাটতি হওয়ার প্রধান কারণ অপুষ্টি। খাদ্যে পর্যাপ্ত পরিমাণে আয়রন না থাকলে আয়রনের অভাব দেখা দেয়। গর্ভবস্থায় এবং শিশুদের বেড়ে ওঠার সময়ে বাড়তি আয়রনের প্রয়োজন। কিন্তু দেখা যায় আমাদের দেশে গর্ভবতী মায়েদের পর্যাপ্ত পরিমাণে পুষ্টিকর খাবার খাওয়ানো হয় না। গ্রামাঞ্চলে এমনিতেই অজ্ঞতার কারণে গর্ভবতী মায়েদের কম খেতে দেওয়া হয়। এ ছাড়া আরো একটি বিশেষ কারণে মহিলারা আয়রনের ঘাটতিতে ভোগে। সেটি হলো অতিরিক্ত ঋতুস্রাব। দীর্ঘমেয়াদি ধীরগতির রক্তক্ষরণ হলে আয়রনের ঘাটতি দেখা দেয়। যেমন : পেপটিক আলসার, কৃমি, পাইলস, দীর্ঘমেয়াদি ব্যথার ওষুধ খাওয়া ইত্যাদি কারণেও আয়রনের ঘাটতিজনিত রক্তশূন্যতা হতে পারে।

লক্ষণ: চোখ, মুখ ফ্যাকাশে হয়ে যাওয়া, দুর্বল লাগা, অবসাদগ্রস্ত হওয়া, মাথা ঘোরা, বমির ভাব, মাথাব্যথা, চোখে ঝাপসা দেখা, মুখে ঘা, খাবার গিলতে অসুবিধা ইত্যাদি লক্ষণ দেখা দিতে পারে। এনিমিয়া বেশি হলে শ্বাসকষ্ট, বুকে চাপ লাগা ব্যথা এমনকি হার্টফেইলিউর পর্যন্ত হতে পারে। পরীক্ষা নিরীক্ষা: রক্তের সিবিসি পরীক্ষা করলেই রক্তশূন্যতা ধরা পড়ে। আয়রনের মাত্রা দেখার জন্য সিরাম আয়রন ও সিরাম ফেরিটিন পরীক্ষা করা হয়। টিআইবিসি বলে এক ধরনের পরীক্ষাও করা হয়।চিকিৎসা: যেকোনো ধরনের রক্তশূন্যতায় চিকিৎসা দেওয়া হয় রক্তশূন্যতার পেছনের কারণটিকে বিবেচনা করে। আয়রনের ঘাটতিজনিত রক্তশূন্যতায় কী কারণে আয়রনের ঘাটতি হলো তা আগে নিশ্চিত করতে হবে। অপুষ্টিজনিত কারণে হলে আয়রন সাপ্লিমেন্ট হিসেবে দেওয়াটাই মূল চিকিৎসা। সঙ্গে আয়রন সমৃদ্ধ খাবারের পরামর্শ দেওয়া হয়। কচু শাক, ডাঁটা শাক, পালং শাক, শিম ও শিমের বিচি, কাঁচা কলা, সামুদ্রিক মাছ, কলিজা, গিলা, গরু-খাসির মাংসে প্রচুর আয়রন থাকে। আয়রন সাপ্লিমেন্ট দুভাবে দেওয়া হয়। মুখে খাবার জন্য ট্যাবলেট ও ক্যাপসুল আকারে, শিরায় ইনজেকশন হিসেবে। কোন উপায়ে রোগী এটা নেবেন তা রোগীর অবস্থা বুঝে চিকিৎসক পরামর্শ দেবেন। পেপটিক আলসার, অতিরিক্ত ঋতুস্রাব, পাইলস থাকলে তার চিকিৎসা করতে হবে। নিয়মিত কৃমির ওষুধ খেতে হবে।বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে নিরাপদ মাতৃত্বের জন্য একটা বড় হুমকি হলো এই আয়রনের ঘাটতিজনিত রক্তশূন্যতা। অথচ এর সমাধান খুব সহজ। শুধু দরকার একটু সচেতনতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *